হিন্দু পারিবারিক আইনে বিবাহ

হিন্দুদের বিবাহ, হিন্দু বিবাহ, হিন্দু বিয়ে, হিন্দু আইনে বিয়ে, বিবাহের ইতিহাস

হিন্দু পারিবারিক আইন কি

হাজার বছর ধরে পৃথিবীর প্রাচীনতম ধর্মগ্রন্থ পবিত্র বেদ কে ভিত্তি করে বিভিন্ন মহাপুরুষ মানুষের সাংসারিক জীবনকে সুখী ও সুন্দর করার জন্য যে নিয়ম-কানুন প্রদান করেছেন এবং তা হিন্দু সমাজে প্রচলিত আছে তাই হিন্দু পারিবারিক আইন। যদি অল্প কথায় বলতে যায় তবে মুসলিম সম্প্রদায়ের যেমন শরীয়া আইন আছে ঠিক তেমনি হিন্দু সম্প্রদায়ের আইনের নাম হিন্দু পারিবারিক আইন।

বিবাহ

সনাতনধর্ম মতে বিবাহ একটি পবিত্র বন্ধন। যা কখনও একটি কাগজে মাধ্যমে নির্ধারণ করা যায় না। পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন উপাস্য অগ্নিকে সাতবার প্রদক্ষিণ মধ্য দিয়ে সাক্ষী রেখে এই বিবাহ বন্ধন যুক্ত করা হয়।

এখানে কোন তালাক বা বিবাহ বিচ্ছেদের নিয়ম নেই তাই হিন্দু সমাজে বিবাহ বিচ্ছেদের কথা তেমন একটা শুনা যায় না। এমন পবিত্র একটি সংস্কৃতিকে কাগজ নির্ভর করার যে ষড়যন্ত্র হচ্ছে তা হিন্দু সমাজ কখনো গ্রহণ করবে না।

এখানে বন্ধন হলো সম্পর্ক। সম্পর্ক টা হলো প্রতিশ্রুতি, এটা কোন দ্বায়ভার নয়। এটা ইতিবাচক। একজন আরেকজনের হয়ে যাওয়ার নাম বিবাহ। নিজেকে আরেকজনের আর তাকে আমার করে নেওয়ার নাম বিবাহ বন্ধন।

এটা একেবারেই শুদ্ধ একটি সংস্কার ও সমাধান মানব জীবনের। এটার মুল ভিত্তি হলো, বিশ্বাস ও ভালোবাসা।

বিবাহ-মানে দুটো আত্মার মিলন।দুটি আত্মাকে একত্র করার অপর নাম হলো বিবাহ বন্ধন। সনাতনধর্ম মতে বিবাহ বন্ধনের কিছু সুন্দর সুন্দর ও অভাবনীয় নিময় আছে। যা অন্য লোকেরা ও অন্য মতের লোকেরা অন্য ধর্মের লোকেরা দেখলে হিংসা করে..

বিবাহ বন্ধনের অনেক সুন্দর সুন্দর নিয়ম আছে।তার মধ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও মহামুল্যবান নিয়ম গুলো হলোঃ শুভদৃষ্টি, সাত পাঁকে ঘুরা,মালা বদল, সিঁদুর দান। সমস্ত নিয়মই কিন্ত খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।যা অনেক গভীর রহস্য।


শুভ দৃষ্টি 

শুভ অর্থাৎ ভালো বা মঙ্গলতম আর দৃষ্টি হলো দেখা বা দর্শন করা। ভালোবাসার বন্ধনের প্রথম তম বন্ধন। যখন তাকে দেখে নিজেকে তার মাঝে হারিয়ে দেওয়ার একটি প্রক্রিয়া। তার সবকিছুকে নিজের মধ্যে দেখা। সেই সুন্দর তম রুপের দৃষ্টিতে তাকে আজীবন দেখা।সেই দৃষ্টি খুব প্রবিত্র।

সমগ্র সংসারের সমস্ত মানুষকে পরিত্যাগ করে, সেই দৃষ্টির মাধ্যমে তাকে আলাদা করে দেখা অর্থাৎ পৃথিবীর সব নারীকে বাদ দিয়ে তুমি কেবল আমার স্ত্রী বা প্রিয়তমা/ পৃথিবীর সকল পুরুষকে বাদ দিয়ে তুমিই কেবল আমার স্বামী বা প্রিয়। এটাই হলো সেই অভাবনীয় সুন্দরতম দৃষ্টি যাকে বলা হয় শুভ দৃষ্টি।

সনাতন ধর্ম মতে বিবাহে আমরা দেখতে পাই,

অগ্নি কুণ্ডলীকে মাঝখানে রেখে চতুর্দিকে বর এবং নববধূকে প্রদক্ষিণ করতে হয়। একে বলে সাত পাঁকে বাঁধা পড়া। বলা হয়, এর মাধ্যমে অগ্নিদেবতাকে বিয়েতে সাক্ষী হিসেবে রাখা হয়। শুধু আগুনের চতুর্দিকে প্রদক্ষিণ করা নয়, এসময় বিভিন্ন প্রতিশ্রুতিও দিতে হয় একে- অপরকে।এখানে প্রত্যেক প্রতিশ্রুতিই থাকে সমান অধিকারের,

প্রথম প্রতিশ্রুতি- প্রথমে বর তাঁর বউ এবং সন্তানদের যত্ন নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন। বিনিময়ে কনেও প্রতিশ্রুতি দেন যে তিনি তাঁর স্বামী এবং তাঁর পরিবারের যত্ন নেবেন।

দ্বিতীয় প্রতিশ্রুতি- এবার বর প্রতিশ্রুতি দেন যে তিনি তাঁর স্ত্রীকে সবরকম পরিস্থিতি থেকে রক্ষা করবেন।বিনিময়ে কনেও প্রতিশ্রুতি দেন যে তিনি স্বামী সবরকম সমস্যায়য় স্বামী পাশে থাকবেন।

তৃতীয় প্রতিশ্রুতি- এবার বর প্রতিশ্রুতি দেন যে তিনি তাঁর পরিবারের জন্য রোজগার করবেন এবং তাঁদের দেখভাল করবেন। একই প্রতিশ্রুতি কনেও দিয়ে থাকেন।

চতুর্থ প্রতিশ্রুতি- স্ত্রীর কাছে তাঁর পরিবারের সমস্ত দায়িত্ব তুলে দেওয়া এবং একইসঙ্গে স্ত্রীর সমস্ত মতামতকে গুরুত্ব দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন বর। স্ত্রী তাঁর সমস্ত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করার প্রতিশ্রুতি দেন।

পঞ্চম প্রতিশ্রুতি- যে কোনও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে স্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করার প্রতিশ্রুতি দেন বর। স্বামীকে সমর্থন করার প্রতিশ্রুতি দেন স্ত্রী।

ষষ্ঠ প্রতিশ্রুতি- স্ত্রীর প্রতি সত্য থাকার প্রতিশ্রুতি দেন স্বামী। স্ত্রীও স্বামীর প্রতি সত্য থাকার প্রতিশ্রুতি দেন।

সপ্তম প্রতিশ্রুতি- শুধু স্বামী হিসেবেই নয়, বন্ধু হিসেবেও সারাজীবন স্ত্রীর সঙ্গে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন বর। স্ত্রীও স্বামীর সঙ্গে আজীবন একসাথে থাকার প্রতিশ্রুতি দেন।

সনাতন বিবাহের মূলমন্ত্র এবং মর্মার্থ :

যদ্যেত হৃদয়ং তব, তদস্তু হৃদয়ং মম।
যদিদং হৃদয়ং মম, তদস্তু হৃদয়ং তব।।

.অর্থাৎ, আমার হৃদয় তোমার হোক; তোমার হৃদয় আমার হোক।আমি আমাকে তোমায় দিলাম,তোমার তোমাকে আমার করলাম।

মালা বদল এই নিয়মের মাধ্যমে সে তার মালা তাকে দেন এবং তার মালা সে নিয়ে বদল করে প্রমান দেন। যে আমি তোমাকে আমার করে নিলাম। আর আমাকে তোমার করে দিলাম।আমার যা আছে সবকিছু তোমার, আর তোমার যা আছে সব কিছু আমার। আমি তোমার তুমি আমার। আমার আগের জীবন থেকে আমি আজ নতুন জীবনে নতুন করে তোমায় নিয়ে বাচার অংগীকার করলাম।

সিঁদুর এইটা হলো সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ। আমি তাকে আমার রক্তে(সিদুর প্রতীকে) তার মাথায় দিয়ে রক্তের আবদ্ধে নিজেকে জড়িয়ে নিলাম। আমি প্রতিশ্রুতি দিলাম আমি আমার রক্তের শেষ বিন্দু দিয়ে হলেও তোমায় রক্ষা করে যাবো আজীবন। আমার রক্তের প্রতীকি করে তোমায় আমি আমার জীবনের পুরোটা দিয়ে তোমায় বেধে রাখবো, কখনই ছেড়ে যাবো না। প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হলাম।

সিঁদুর পড়ানোর মন্ত্র :

ওঁ শিরোভূষণ সিন্দুরং ভর্তারায়ু বিবর্ধনং।
সর্বারত্নাকরং দিব্যং সিন্দুরং পতিগৃহ্যতাম্।।

শাঁখা পড়ানোর মন্ত্র :

ওঁ শঙ্খালঙ্কারং বিবিধং চিত্রং বাহুনাঞ্চ বিভূষণম্।
মহোদধিসম্ভূতাঃ সর্বদেবীপ্রিয়া সদা।
শঙ্খ বলয় কন্যাভূষণানাং সদুত্তমম্।।

কলমে- অভিজিৎ প্রতাপ রায়